22.4 C
New York
Friday, September 17, 2021
বাড়ি প্রচ্ছদ

হেলিকপ্টারে দুর্গম পাহাড়ি এলাকা গিয়ে দেওয়া হলো দ্বিতীয় ডোজ টিকা

টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: বাংলাদেশের রাঙামাটির বিলাইছড়ির দুর্গম পাহাড়ি এলাকা বড়থলি ইউনিয়নে বিমানবাহিনীর একটি হেলিকপ্টারেযোগে গিয়ে করোনার দ্বিতীয় ডোজের গণটিকা প্রদান করা হয়েছে। মঙ্গলবার ২৭৩ জনকে দ্বিতীয় ডোজ ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছে। ১০ আগস্ট একইভাবে গিয়ে সেখানে ২৯২ জনকে প্রথম ডোজ সিনোফার্মার ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়।
বিলাইছড়ি উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানানো হয়েছে, মঙ্গলবার সকালে কাপ্তাই পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্রের হেলিপ্যাড থেকে হেলিকপ্টারে গিয়ে ওই এলাকায় গণটিকা কার্যক্রম পরিচালনা শেষ করে বিকালে ফিরেছে প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের যৌথ টিম।
বিলাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান এবং উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রশ্মি চাকমার নেতৃত্বে ৫ জনের একটি স্বাস্থ্যকর্মীর দল করোনার গণটিকা কার্যক্রমে অংশ নিয়েছেন। এর আগে ১০ আগস্ট একইভাবে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টারে গিয়ে ওই এলাকায় প্রথম ডোজ গণটিকা কার্যক্রম পরিচালিত হয়।
বিলাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান বলেন, বিলাইছড়ি উপজেলার দুর্গম বড়থলি ইউনিয়নে জেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ, সেনাবাহিনী ও বিমানবাহিনীর সহায়তায় হেলিকপ্টারে গিয়ে ওই এলাকার ২৯২ জনকে করোনার প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। একইভাবে সেখানে ২৭৩ জনকে দ্বিতীয় ডোজ ভ্যাকসিন প্রয়োগ সম্পন্ন করা হলো। এ সময় এলাকার মানুষ বিপুল উৎসাহে ভ্যাকসিন নিয়েছেন।
বিলাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রশ্মি চাকমা বলেন, ওই এলাকায় করোনার টিকা ছাড়াও একইভাবে বিভিন্ন সময়ে ইপিআই ও স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে।

দুই কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার প্রতিযোগিতা

টাইমস ২৪ ডটনেট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়া পাল্টাপাল্টি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে। মার্কিন বাহিনীর সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনীর যৌথ মহড়াকে কেন্দ্র করে যখন পিয়ংইয়ং ও সিউলের মধ্যে উত্তেজনা চলছে তখন এই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার ঘটনা ঘটলো। বুধবার বিকেলে প্রথমে উত্তর কোরিয়া দুটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায়। দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ এক বিবৃতিতে জানান, উত্তর কোরিয়ার মধ্যাঞ্চল থেকে পূর্ব উপকূল অভিমুখে দুটি ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়া হয় এবং সেগুলো জাপানের বিশেষ অর্থনৈতিক এলাকায় আঘাত আঘাত হানে। এর দুদিন আগে উত্তর কোরিয়া জানিয়েছিল, তারা সফলতার সঙ্গে নতুন দীর্ঘপাল্লার ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে।এদিকে দক্ষিণ কোরিয়া বলেছে, সফলতার সঙ্গে তারা আজ সাবমেরিন থেকে একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করেছে। দক্ষিণ কোরিয়া এই প্রথম এ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালালো। এর মধ্যদিয়ে দক্ষিণ কোরিয়া বিশ্বের সপ্তম দেশ হিসেবে এলিট ক্লাবে নাম লেখালো যাদের কাছে এমন উন্নত প্রযুক্তি আছে।

সূত্র: পার্সটুডে।

জীবনের উপযোগী নতুন গ্রহের সন্ধান

টাইমস ২৪ ডটনেট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সৌরজগতের বাইরে নতুন কিছু গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা যেখানে জীবনের উপযোগী পরিবেশ থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।যুক্তরাজ্যের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা খুব সম্প্রতি পৃথিবী থেকে বহু আলোক-বর্ষ দূরে এসব গ্রহের খোঁজ পেয়েছেন। সদ্য আবিষ্কৃত এসব গ্রহকে বলা হচ্ছে ‘হাইসিয়ান এক্সোপ্ল্যানেট’। হাইসিয়ান কথাটি এসেছে হাইগ্রোজেন এবং ওশান শব্দ দুটির সংমিশ্রণে। অর্থাৎ এসব গ্রহে হাইড্রোজেন ও সমুদ্র আছে।

সূত্র: বিবিসি।

কোভিড টিকার তৃতীয় ডোজের প্রয়োজন নেই : গবেষণা

টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: উন্নত দেশগুলো কোভিড টিকার তৃতীয় ডোজ দেওয়া শুরু করেছে। তবে সোমবার প্রখ্যাত ব্রিটিশ চিকিৎসা সাময়িকী ল্যানসেটে প্রকাশিত এক গবেষণা নিবন্ধে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, কোভিড সংক্রমণ প্রতিরোধে স্বাভাবিকভাবে টিকার যে ডোজ দেওয়া হয় সেটাই যথেষ্ট কার্যকর। তৃতীয় ডোজ দেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই।
করোনার অতিসংক্রামক ধরন ডেল্টার প্রকোপ ঠেকাতে কিছু দেশ বাড়তি ডোজ দেওয়া শুরু করায় আপাতত তা স্থগিত রাখার আহ্বান জানিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলে আসছে, দরিদ্র দেশগুলো অল্প কিছু টিকা পেয়েছে। কোটি কোটি মানুষ এক ডোজও পায়নি। এমন পরিস্থিতিতে তৃতীয় ডোজ দেওয়া স্থগিত রাখা উচিত।
ল্যানসেটে প্রকাশিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ অন্যান্য বিজ্ঞানীদের ওই নিবন্ধে উপসংহার টানা হয়েছে যে, করোনার অতিসংক্রামক ধরন ডেল্টার ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও ‘বৈশ্বিক একটি মহামারির এই পর্যায়ে এসে সাধারণ মানুষকে কোভিড টিকার বাড়তি কোনো ডোজ (বুস্টার ডোজ) দেওয়ার মতো পদক্ষেপ যথার্থ হতে পারে না।
টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল ও তার পর্যবেক্ষণের সঙ্গে যুক্ত এই বিজ্ঞানীরা গবেষণায় দেখতে পেয়েছেন, কোভিডের গুরুতর উপসর্গের ক্ষেত্রেও টিকা এখনো উচ্চমাত্রায় কার্যকর। সেটা ডেল্টাসহ মূল ভাইরাসটির যে কোনো ধরনের সংক্রমণে। তবে তারা দেখেছেন, উপসর্গহীন কোভিডের সংক্রমণ ঠেকাতে টিকা কিছুটা কম কার্যকর।
ব্যাকটোল্যাক ফার্মাসিউটিক্যাল অ্যাকিউন ল্যাবস ইনক, এনওয়াই এবং ইউএসএ ওয়াইন্ডার ল্যাবস উইন্ডার ল্যাবের গবেষক ডা. শেরাজুলি শেলি বলেছেন, সামগ্রিকভাবে এখন পর্যন্ত হওয়া গবেষণায় এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি যে গুরুতর সংক্রমণ ঠেকানোর ক্ষেত্রে টিকার সুরক্ষা হ্রাস পায়। এটাই টিকাদান কর্মসূচির প্রাথমিক লক্ষ্য। তাই যারা এখনো টিকা পায়নি তাদের আগে টিকা দেওয়া উচিত।

 

তালেবান নিয়ন্ত্রিত কাবুলে প্রথম বাণিজ্যিক ফ্লাইটের অবতরণ

টাইমস ২৪ ডটনেট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। এরপর থেকে দেশটির সঙ্গে বাণিজ্যিক ফ্লাইট বন্ধ করে দেয় বিভিন্ন দেশ। প্রায় তিন সপ্তাহেরও বেশি সময় পর কাবুল বিমানবন্দরে সোমবার ফের আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক ফ্লাইট অবতরণ করল। বার্তা সংস্থা এএফপির বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায় এনডিটিভি।
খবরে বলা হয়, মুষ্টিমেয় যাত্রী নিয়ে পাকিস্তান এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট সোমবার কাবুলে অবতরণ করেছে। হয়তো ফ্লাইটে ১০ জনের মতো যাত্রী ছিলেন। মনে হয় এ ফ্লাইটে যাত্রীর চেয়ে বিমানের স্টাফ বেশি ছিলেন। এর আগে পিআইএয়ের মুখপাত্র আবদুল্লাহ হাফিজ খান বলেছিলেন, আমরা কাবুলে ফ্লাইট পরিচালনার জন্য সব ধরনের কারিগরি ছাড়পত্র পেয়েছি। আমাদের প্রথম বাণিজ্যিক ফ্লাইট কাবুলের উদ্দেশে ইসলামাবাদ ছাড়বে ১৩ সেপ্টেম্বর।
কাতার এয়ারওয়েজ কাবুল থেকে বেশ কয়েকটি চার্টার্ড ফ্লাইট পরিচালনা করেছে। একই সঙ্গে একটি আফগান এয়ারলাইন্স গত সপ্তাহে অভ্যন্তরণী ফ্লাইট চালু করেছে।

আফগানিস্তানের সংকট মোকাবিলায় প্রয়োজন ৬০৬ মিলিয়ন ডলার: জাতিসংঘ

টাইমস ২৪ ডটনেট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আফগানিস্তানে তালেবান ক্ষমতায় আসার পর মানবিক সংকট মোকাবিলায় ৬০৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রয়োজন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। সোমবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় আফগানিস্তানের সাহায্য নিয়ে সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে। খবর রয়টার্সের। এর আগে আফগানিস্তান তালেবানের নিয়ন্ত্রণে যাওয়ার পর সেখানে মানবিক বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে জাতিসংঘ।
গত ১৫ আগস্ট তালেবানের আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখলের আগপর্যন্ত আফগানিস্তানের অর্ধেক জনগোষ্ঠী, অর্থাৎ এক কোটি ৮০ লাখ মানুষ সহযোগিতার ওপর নির্ভরশীল ছিল।খরা, খাদ্য ও নগদ অর্থ সংকটে এবং রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের ফলে সৃষ্ট অস্থিরতায় এই নির্ভরশীল মানুষের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কার কথা জানিয়েছে জাতিসংঘসহ অন্য সাহায্য সংস্থাগুলো।পশ্চিমা মদদপুষ্ট সরকারের পতনে এবং তালেবানের বিজয়ের ফলে আফগানিস্তানে শত শত কোটি ডলারের বৈদেশিক সাহায্য বন্ধ হয়ে গেছে।
দেশটিতে জাতিসংঘের কার্যক্রম চালানো নিয়েও চাপ তৈরি হয়েছে। জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস গত শুক্রবার জানিয়েছেন, এ মুহূর্তে জাতিসংঘ নিজের কর্মীদের বেতনই দিতে পারছে না।৬০৬ মিলিয়ন ডলারের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামের (ডব্লিউএফপি) মাধ্যমে খাদ্য সরবরাহে ব্যয় করার কথা রয়েছে।
আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে ডব্লিউএফপি আফগানিস্তানে একটি জরিপ চালিয়ে জানায়, দেশটির ৯৩ শতাংশ মানুষ পর্যাপ্ত পরিমাণ খাবার পাচ্ছেন না। এ ছাড়া জাতিসংঘের আরেকটি প্রতিষ্ঠান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডব্লিউএইচও) এই সাহায্যের অর্থ আফগানিস্তানে তাদের স্বাস্থ্য কার্যক্রম পরিচলানায় ব্যয় করবে।

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী শিল্পী নচিকেতার কালজয়ী গান “পেসমেকার” অবলম্বনে বাংলাদেশে নির্মিত হয়েছে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র “অসম প্রেম”


টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: জীবনমুখী গানের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ও সংগীত পরিচালক নচিকেতা চক্রবর্তীর “পেসমেকার” গানের অবলম্বনে বাংলাদেশে নির্মিত হয়েছে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র “অসম প্রেম”। এটি পরিচালনা করেছেন সাংবাদিক, অভিনেতা আহমেদ সাব্বির রোমিও। এই স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছেন নৃত্য শিল্পী ও অভিনেত্রী প্রিয়াংকা ইসলাম। পরিচালক নিজে ছাড়াও আরো যারা অভিনয় করছেন তারা হলেন, ফারজানা রুমি, সামিন ফারদীন সৌমিক, শিশু শিল্পী রাজদীপসহ অনেকে। পাশাপাশি ‘পেসমেকার ‘ কভার গানটিতে কন্ঠ দিয়েছেন আকতারুল আলম তিনু। মিউজিক রি-কম্পাজ করেছেন সংগীত পরিচালক শামীম মাহামুদ।
দুটি কাজের প্রধান সহকারী পরিচালক ছিলেন বাপ্পা দীপ রায়, এডিটিং এবং কালার গ্রেডিং আকতারুল আলম তিনু। ডিওপির দায়িত্বে ছিলেন সজিব খান। সহকারী পরিচালক মাসুদ রানা। মেক-আপ আবদুর রহিম। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন লোকেশনে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র এবং কভার সংটির ভিডিও দূশ্যের চিত্রধারন করা হয়েছে। গত ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ এই কাজ দুটি অনলাইন প্লাটফর্মে মুক্তি পেয়েছে।

ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর সৌরঝড়


টাইমস ২৪ ডটনেট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভয়ঙ্কর সৌরঝড় বা ‘সোলার স্টর্ম’ আসছে। যার ফলে ভেঙে পড়তে পারে সারা বিশ্বের যাবতীয় ইন্টারনেট যোগাযোগ ব্যবস্থা। আর তা বেশ কয়েক সপ্তাহ বা কয়েক মাস পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। এই ধরনের সৌরঝড়কে বিজ্ঞানের পরিভাষায় বলা হয়, ‘করোনাল ম্যাস ইজেকশান (সিএমই)’। যা পুরো সৌরমণ্ডলের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক। যুক্তরাষ্ট্রের আরভিনে অবস্থিত ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় সাম্প্রতিক একটি গবেষণা এই অশনিসঙ্কেত দিয়েছে। গবেষণাপত্রটি পিয়ার রিভিউ পর্যায় পেরিয়ে একটি আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান গবেষণা পত্রিকায় প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে। গত মঙ্গলবার অনলাইনে প্রকাশিত হয়েছে গবেষণাপত্রটি।

পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর সৌরঝড়
গবেষকরা জানিয়েছেন, আসন্ন সৌরঝড়ের মতো ভয়ঙ্কর দুর্যোগ বা সৌরঝড় আধুনিক বিশ্ব দেখেছিল ১৮৫৯ এবং ১৯২১ সালে। সে ক্ষেত্রে বলা যায়, ১০০ বছর পর ফের ভয়ঙ্কর সৌরঝড়ের মুখোমুখি হতে চলেছে পৃথিবী।
১৯২১ সালে ভয়ঙ্কর ওসই সৌরঝড় আছড়ে পড়ায় পৃথিবীর যা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল তা অভূতপূর্ব। বিজ্ঞানের পরিভাষায় তার নাম ‘ক্যারিংটন অ্যাফেক্ট’। সেই সৌরঝড়ের ঝাপটায় পৃথিবীকে ঘিরে থাকা বিশাল চৌম্বক ক্ষেত্রে বড় বড় ফাটল ধরেছিল। আর তার ফাঁক দিয়ে ঢুকেছিল অত্যন্ত বিষাক্ত সৌরকণা আর মহাজাগতিক রশ্মি। টেলিগ্রাফের তার সশব্দে ফেটে গিয়ে দাউদাউ করে জ্বলেছিল দীর্ঘ সময় ধরে। যে মেরুজ্যোতি (‘অরোরা’) শুধু পৃথিবীর দুই মেরুতেই দেখা যায় সাধারণত, সৌরঝড়ের প্রবল ঝাপটায় সে বার তা বিষুবরেখার নিচে থাকা কলোম্বিয়াতেও দেখা গিয়েছিল। খুব উজ্জ্বল ভাবে।

This energy-boosting region in the Sun will have a new NASA satellite watching it
গবেষকরা লিখেছেন, ‘এমন ভয়ঙ্কর সৌরঝড় বা সিএমই’র পৃথিবীর ওপর আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা প্রতি দশকে থাকে ১ দশমিক ৬ শতাংশ থেকে ১২ শতাংশ। এ বার তেমনই একটি সিএমই’র ঝাপটা সইতে হতে পারে পৃথিবীকে। যার সম্ভাবনা খুব বেশি।’
পৃথিবীর চার পাশে থাকা শক্তিশালী চৌম্বক ক্ষেত্রই সৌরঝড়-সহ সূর্য থেকে ছুটে আসা নানা ধরনের পদার্থের হাত থেকে বাঁচায় আমাদের। দুই মেরুতে চৌম্বক ক্ষেত্র সবচেয়ে বেশি শক্তিশালী থাকে বলে সৌরকণারা ধেয়ে এলে তাদের বেশির ভাগকেই ফিরিয়ে দেয় দুই মেরুর চৌম্বক ক্ষেত্র। সেই সংঘর্ষেই মেরুজ্যোতির জন্ম হয়। পৃথিবীসহ সৌরমণ্ডলের সব গ্রহের দিকেই ধেয়ে যায় এই সৌরঝড়। যে গ্রহের চৌম্বক ক্ষেত্র প্রায় নেই বা খুব পাতলা, নেই বায়ুমণ্ডলও সেই গ্রহকে এই ঝাপটা বেশি সহ্য করতে হয়। তাই কোনো কালে প্রাণের অস্তিত্ব সম্ভব হলেও সেখানে তা টিকে থাকতে পারেনি মঙ্গল গ্রহে। তার চার পাশে চৌম্বক ক্ষেত্রে প্রায় নেই বলে। এছাড়া সেখানকার বায়ুমণ্ডলও খুব পাতলা।

ধেয়ে আসছে শক্তিশালী সৌরঝড়!
মূল গবেষক, আরভিনের ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক সঙ্গীতা আবদু জ্যোতি বলেছেন, ‘যেটা সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয় তা হলো, আমরা মহামারির জন্য যেমন আদৌ প্রস্তুত ছিলাম না, এক্ষেত্রেও তেমনটাই হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কারণ, সূর্যের বায়ুমণ্ডলে (করোনা) কখন ভয়ঙ্কর সৌরঝড় উঠবে তার পূর্বাভাস দেওয়া সম্ভব নয় এখনও। তবে এটুকু বলা যায়, সেই ভয়ঙ্কর সৌরঝড়ের পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসতে অন্তত ১৩ ঘণ্টা সময় লাগবে।’

পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর সৌরঝড়
গবেষণাপত্রটিতে আরও বলা হয়েছে, আধুনিক ইন্টারনেট যোগাযোগব্যবস্থার ওপর এ বারের সিএমই’র আঘাত কতটা ভয়াবহ হয়ে উঠতে পারে সে ব্যাপারে কোনো বাড়তি তথ্য বিজ্ঞানীদের হাতে নেই। কারণ, এর আগে ১৯২১ সালে যখন এমন ভয়ঙ্কর সিএমই পৃথিবীর ওপর আছড়ে পড়েছিল তখন পৃথিবীতে ইন্টারনেট ব্যবস্থাই গড়ে ওঠেনি।


গবেষকদের আশঙ্কা, এ বার যে ভয়ঙ্কর সিএমই আসছে পৃথিবীর দিকে তার কারণে সমুদ্রের নীচ দিয়ে এক মহাদেশ থেকে অন্য মহাদেশে যাওয়া ইন্টারনেটের যাবতীয় তার খুব ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বার্তার গতি বাড়াতে এই ইন্টারনেট তার বা ক্যাবলগুলোতে ৩০ থেকে ৯০ মাইল অন্তর বসানো থাকে ‘রিপিটার’। পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র স্বাভাবিক না থাকলে এই রিপিটারগুলো নষ্ট হয়ে যায়। একটি রিপিটার ক্ষতিগ্রস্ত হলেই ভেঙে পড়ে সেই লাইনের যাবতীয় ইন্টারনেট যোগাযোগব্যবস্থা। দেশের মধ্যে ইন্টারনেট যোগাযোগের কেবলগুলোর মতো সমুদ্রের নীচে থাকা এই কেবলগুলো ফাইবার দিয়ে বানানো হয় না। তাই সেগুলোর নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে আরও বেশি।

Business Prime News-SOLAR_STORM_MONDAY_HIT_EARTH

ইতিহাস গড়ে সিরিজ জিতল বাংলাদেশ

টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: প্রথম দুই ম্যাচ জিতে সিরিজ জয়ের আভাস দিয়ে রেখেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু তৃতীয় ম্যাচে হেরে যায় স্বাগতিকরা। বুধবার মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে চতুর্থ ম্যাচে ৬ উইকেটে জিতে ইতিহাস গড়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জিতেছে টাইগাররা। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ইতিহাসগড়া সিরিজ জয়ের রেশ কাটতে না কাটতেই এবার নিউজিল্যান্ডকেও নাকানি চুবানি খাওয়ালো টাইগাররা, গড়লো আরেকটি ইতিহাস। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে জয়ই ছিল না। সেই দলটিকেই ৪-১ ব্যবধানে হারিয়ে সিরিজ নিজেদের করে নেয় বাংলাদেশ। একই পরিণতির অপেক্ষায় এবার কিউইরা।
এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষেও টি-টোয়েন্টিতে জয় অধরা ছিল। সেই জয়খরা কাটানো হয়েছিল আগেই, এবার এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজও নিশ্চিত করে নিলো মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। মিরপুরে সিরিজের চতুর্থ টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ডকে মাত্র ৯৩ রানে গুটিয়ে দিয়ে ৬ উইকেটের সহজ জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। পাঁচ ম্যাচ সিরিজে এখন তারা এগিয়ে ৩-১ ব্যবধানে। সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টি শুক্রবার। আগের ম্যাচে ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে মাত্র ৭৬ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল টাইগাররা। এবার তাই ধীরগতিতে শুরু করেছিলেন দুই ওপেনার লিটন দাস আর নাইম শেখ। প্রথম দুই ওভারে তারা তোলেন ৪ রান। তবে কাজের কাজ হয়নি।
ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই লিটনকে সাজঘরের পথ দেখান কোল ম্যাকঞ্চি। কিউই অফস্পিনারকে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে ডিপ স্কয়ারে ফ্যাবিয়েন অ্যালেনের দুর্দান্ত ক্যাচ হন টাইগার ওপেনার (১১ বলে ৬)। এরপর ২৪ রানের ছোট একটি জুটি গড়ে উঠে নাইম আর সাকিব আল হাসানের মধ্যে। জুটিটি বড় হতে পারতো। কিন্তু সাকিব টার্নিং পিচে অদূরদর্শী কাজ করে বসেন।
অ্যাজাজ প্যাটেলকে ডাউন দ্য উইকেটে মারতে গিয়ে স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার (৮ বলে ৮)। দুই বল পর টাইগারদের আরেক ব্যাটিং ভরসা মুশফিকুর রহীমকেও (০) বোল্ড করে দেন প্যাটেল। ৩২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে স্বাগতিকরা। সেখান থেকে দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে দলকে এগিয়ে নেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আর নাইম শেখ। মারমুখী না খেলে তারা দেখেশুনে এগোতে থাকেন। ৫০ বলে ৩৫ রানের সেই জুটিটি শেষ পর্যন্ত ভেঙেছে ১৫তম ওভারে, দুর্ভাগ্যজনক এক রানআউটে। ব্লেইর টিকনারের শর্ট অব লেন্থ ডেলিভারি ডিপ ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগে ঠেলে দিয়ে দুই রানের জন্য দৌড় দিয়েছিলেন নাইম শেখ। কিন্তু দ্বিতীয় রানটি আর পূর্ণ করতে পারেননি।
ব্রেসওয়েলের থ্রো কিপারের হাতে পৌঁছে গেলে ডাইভ দিয়েও বাঁচতে পারেননি নাইম। ৩৫ বলে একটি করে চার-ছক্কায় গড়া টাইগার ওপেনারের ২৯ রানের ইনিংসের ইতি সেখানেই।
এর আগে নাসুম আহমেদ আর মোস্তাফিজুর রহমানের বোলিং তোপে ইনিংসের ৩ বল বাকি থাকতে মাত্র ৯৩ রানে গুটিয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। নাসুম-মোস্তাফিজ দুজনই নেন ৪টি করে উইকেট।
টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা কিউইদের শুরুটা ভালো করতে দেয়নি বাংলাদেশ। নাসুম আহমেদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে চাপে পড়ে সফরকারিরা। প্রথম ওভারেই বাঁহাতি এই স্পিনারকে আক্রমণে নিয়ে আসেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।
ওই ওভারের চতুর্থ বলে রাচিন রবীন্দ্রকে (০) তুলে নেন নাসুম। সুইপ করতে গিয়ে কিউই ওপেনার বল ভাসিয়ে দেন বাতাসে। শর্ট ফাইন লেগ থেকে দৌড়ে এসে ক্যাচ তালুবন্দী করেন সাইফউদ্দিন। ওই ওভারে এক রানও খরচ করেননি নাসুম।
সাকিব আল হাসান ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে এসে দেন ১০ রান। ফিন এলেন হাঁটু গেড়ে রিভার্স সুইপ করে অবিশ্বাস্য এক ছক্কা হাঁকান বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারকে। তবে তৃতীয় ওভারে সেই অ্যালেনকেও আউট করেছেন নাসুম।
আরেকটি রিভার্স সুইপ খেলতে চেয়েছিলেন। কিন্তু এবার টাইমিং মেলাতে না পেরে মারমুখী কিউই ওপেনার (৮ বলে ১০) পয়েন্টে হন সাইফউদ্দিনের সহজ ক্যাচ। ১৬ রানে ২ উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। চাপের মুখে কৌশল বদলে ফেলে সফরকারিরা। তৃতীয় উইকেটে টম ল্যাথাম আর উইল ইয়ং রানরেটের দিকে নজর না দিয়ে দেখেশুনে খেলতে থাকেন। শেষ পর্যন্ত তাদের থিতু হয়ে যাওয়া জুটিটি (৪৫ বলে ৩৪) একাদশতম ওভারে ভাঙেন শেখ মেহেদি হাসান।
টাইগার অফস্পিনারকে ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে চেয়েছিলেন ল্যাথাম। কিন্তু কিউই অধিনায়ক ঘূর্ণিবল বুঝতে পারেননি। অনেকটা সামনে এগিয়ে যাওয়া ল্যাথামকে (২৬ বলে ২১) সহজেই স্ট্যাম্পিং করেন নুরুল হাসান সোহান। এর পরের ওভার ফের নাসুম ঝলক। এবার টানা দুই বলে দুই ব্যাটসম্যানকে সাজঘরের পথ দেখান এই বাঁহাতি। ওভারের দ্বিতীয় বলে বোল্ড করেন হেনরি নিকোলসকে (১)। পরের বলে টার্ন বুঝতে না পেরে ব্যাট পেতে দিয়ে উইকেটরক্ষকের ক্যাচ হন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম (০)।
টম ব্লান্ডেলকে উইকেটে থিতু হতে দেননি মোস্তাফিজুর রহমান। ১৬তম ওভারে তার স্লোয়ারে বিভ্রান্ত হয়ে ব্যাট ধরে দেন ব্লান্ডেল (৪), মিডঅন থেকে দৌড়ে এসে দারুণ এক ক্যাচ ধরেন নাইম শেখ। ওই ওভারেই শেষ বলে কোল ম্যাকঞ্চিকে (০) ফিরতি ক্যাচ বানিয়েছেন কাটার মাস্টার। একটা প্রান্ত ধরে ছিলেন উইল ইয়ং। তিনিই কিউইদের একশর কাছাকাছি নিয়ে গেছেন। ৪৮ বলে ৪৬ রান করে ইনিংসের শেষ ওভারে মোস্তাফিজের শিকার হয়েছেন এই ব্যাটসম্যান।
বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল নাসুম আহমেদ। ৪ ওভারে দুটি মেইডেনসহ মাত্র ১০ রান খরচায় ৪টি উইকেট নিয়েছেন এই স্পিনার। মোস্তাফিজও নেন ৪ উইকেট। ৩.৩ ওভারে খরচ করেন ১২ রান।

হাসপাতালে বন্যার পানি, মেক্সিকোয় ১৭ রোগীর মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মেক্সিকোয় একটি হাসপাতালে বন্যার পানি ঢুকে অন্তত ১৭ রোগীর মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে কয়েকজন করোনা রোগীও রয়েছেন। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় হিদালগো রাজ্যের একটি হাসপাতালে এই ঘটনা ঘটে। খবর রয়টার্সের
খবরে বলা হয়েছে, ভারী বৃষ্টির কারণে একটি নদীর বাঁধ ফেটে যাওয়ায় তুলা শহরের হাসপাতালে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। মৃত্যু হওয়া করোনা রোগীদের অক্সিজেন থেরাপির মধ্যে রাখা হয়েছিল। উদ্ধারকারীরা প্রায় ৪০০ জন রোগীকে সরিয়ে নিয়েছে।
এদিকে রাজ্যের গভর্নরকে বহনকারী একটি নৌকা নদীতে ডুবে যায়। গভর্নর ওমর ফায়াদ পরে টুইট করেন জানান, তিনি ‘নিরাপদ ও সুস্থ’ রয়েছেন। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় জরুরি কার্যক্রম পরিচালনা অব্যাহত রয়েছেন।দুর্যোগ মোকাবেলায় উদ্ধারকারী দলগুলোর পাশাপাশি সেনাবাহিনী কাজ করছে।

মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাডর বলেছেন, হাসপাতালে মৃত্যুতে তিনি ‘অত্যন্ত দুঃখিত’। তিনি নিচু এলাকার বাসিন্দাদের আশ্রয়কেন্দ্রে চলে যেতে বা আত্মীয় বা বন্ধুদের সঙ্গে নিরাপদ স্থানে থাকার আহ্বান জানান।

হিদালগো রাজ্যজুড়ে ৩০ হাজারের বেশি মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মেক্সিকো সিটির উত্তরাঞ্চলীয় শহর ইকাটেপেকে বন্যায় দুইজন মারা গেছে।

বন্যার এই দুর্গতির মধ্যে দেশটিতে ৭ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। স্থানীয় রাজ্যের গভর্নর ভূমিকম্পকে বড় কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন।