চলতি সংবাদজাতীয়

ঢাকায় ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে ওমিক্রন

টাইমস২৪ ডটনেট, ঢাকা: বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন। প্রতিদিন ​লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে ওমিক্রনের সংক্রমণ। ওমিক্রনের কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু হওয়ায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে ঢাকাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায়। এরই মধ্যে উচ্চ ঝুঁকি ঢাকা ও রাঙ্গামাটি জেলাকে ঘোষণা করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। নতুন শনাক্তের ৮১ শতাংশই ঢাকায় বসবাসকারী মানুষ। দৈনিক শনাক্তের হার ১৩ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। গত এক সপ্তাহে বাংলাদেশে করোনার সংক্রমণ বেড়েছে দ্বিগুণ। আগের সপ্তাহের তুলনায় ১৬৯ শতাংশের বেশি রোগী বৃদ্ধি পেয়েছে। সংক্রমণের গতি ঠেকানো না গেলে দ্রুতই ভয়ংকর রূপ নেবে করোনা।
ওমিক্রন নিয়ে বাংলাদেশেও উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে বাংলাদেশ সরকার দেয়া করোনা মোকাবিলায় নতুন করে বিধিনিষেধ চলছে। এতে সব ধরনের জনসমাগম সীমিত করাসহ ১১ দফা নির্দেশনা জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এ অবস্থায় সবাইকে মাস্ক পরতে হবে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, সবাইকে টিকা নিতে হবে। যারা মাস্ক পরা ছাড়া ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন তাদেরকে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জেল-জরিমানা করা হচ্ছে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক নর্থইস্ট নাওকে বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়েই চলছে। এমন পরিস্থিতিতে সরকারের দেওয়া ১১ দফা বিধিনিষেধ না মানলে দেশের অবস্থা ভয়াবহ হবে। লকডাউন দিলে দেশের ক্ষতি হবে। আমরা সেদিকে যেতে চাই না, তাই সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। বাণিজ্য মেলাসহ অনেক স্থানেই যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। এটা খুবই উদ্বেগজনক। নিজের জন্য, দেশের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। মাস্ক পরার কোনো বিকল্প নেই। মাস্ক পরতে হবে যাতে আমরা সংক্রমিত না হই।
মন্ত্রী বলেন, কোভিড খুবই ঊর্ধ্বমুখী। গতকাল প্রায় ৪ হাজার ৪০০ লোক আক্রান্ত হয়েছেন এবং সংক্রমণের হার ১৩ শতাংশের বেশি ছাড়িয়ে গেছে। প্রতিদিনই এই সংক্রমণের হার ২ শতাংশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ অবস্থায় আমাদের সবাইকে মাস্ক পরতে হবে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, সবাইকে টিকা নিতে হবে। আমাদের টিকার কোনো ঘাটতি নেই। ইতোমধ্যে সোয়া ১৪ কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। প্রায় ৭০ লাখ শিক্ষার্থী টিকা পেয়েছে।
একটি সমীক্ষার উদাহারণ দিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, প্রতিদিন আড়াই হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে, তবে সেখানে ৩০০ জন হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। এর মধ্যে শতকরা এক ভাগ লোকের আইসিইউ প্রয়োজন হচ্ছে। এই মুহূর্তে এটিও আশঙ্কাজনক। এইভাবে সংক্রমণ ও রোগী বাড়তে থাকলে হাসপাতfলগুলোতে জায়গা থাকবে না। কাজেই আমাদের সতর্ক হতে হবে।
জাহিদ মালেক বলেন, বিশ্বজুড়ে ওমিক্রন সাংঘাতিকভাবে বাড়ছে। গতকালও সারা বিশ্বে ৩২ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এবং ৭ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। তাদের অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ হয়ে পড়ছে। আমরা এটা চাই না, আমরা আমাদের দেশের অর্থনীতি সচল ও জীবন ব্যবস্থা ভালো রাখতে চাই। প্রতিটি জেলা হাসপাতালে সিটি স্ক্যান মেশিন ও ১০ বেডের ডায়ালাইসিস ইউনিট স্থাপন করা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button