প্রবাসী কবি মুহিতের দুইটি কবিতা

রুপোলী রাত্তিরে
আজি জোস্নাচন্দ্র নিশি জাগিয়া।
ব্রজাসনে স্বর্গ মর্ত্য নরক ভেদিয়া।
বিবর্তিত মানবালয়ের রুপ দেখিয়াছি।
জোস্না তিথির তীর্থ ভূমে,
কৃষ্ণ তিথির চক্র বায়ে।
জীর্ণ শীর্ণ ভোজনালয়ে,
প্রভাত শশীর রবি প্রণতি প্রতি।
গৃহ বৈরাগ্য মুক্তির প্রদীপ্ত অন্বেষণ!
রোগ শোক জরাগ্রস্ত অবক্ষয় মানবালয়।
মানব মুক্তির প্রদীপ্ত আধারে,
দিব্য চেতনার স্বর্গলোকে।
স্থুল সূক্ষ্ম জ্যোতির দর্শনে,
শূধু শুভ্র পরিভ্রমণ…।

দিবস ও যামিনী কম্পমান থরো থরো!
বোশেখী শুক্লপক্ষ শুভক্ষন।
কৃষ্ণ তিথির মহাকাল যুগ সঞ্চিত,
শোক গাঁথা ফুরায়ে আজি।
মানবালয়ে বুদ্ধত্ব ফুটিল।
মহাকাল অন্বেষণ জুটিল।
অবচেতন মননের দ্বার,
উন্মোচন হইয়া চেতন মনন বিকশিল।

আজি বোশেখ পূর্ণিমা জ্বলে।
ত্রিপিটক নিঃসৃত বাণী বীণা পোড়ে।
অসাম্য অসৌম্য অভ্রাতৃত্ব রোগ শোক জরা।
গ্রাস করিয়াছে মানবালয়ে।
ব্রজাসনে বসিয়া বিজনে।
একাকী বাতায়নে বলিয়াছ তুমিই জগদীশ্বর!
প্রাত প্রভাতে রবির কিরনে জ্বলিছে
তোমার দেবালয়।
মঙ্গল প্রদীপ জ্বালিয়ে,
শান্ত কর তোমার দ্বীপাধার।
তোমার ধরণীতল।

ফ্লোরেন্স সিটি ইটালী।
বুধবার দ্বিপ্রহর।
৬ এপ্রিল ২০২০ইং।

নন্দিনীর লগ্ন বহিয়া যায়

আজি তৃষিত প্রানের ব্যাকুল হিয়ায়।
লজ্জারুণ মরু বেলায় লগ্ন বহিয়া যায়।
মরুর ও বালু নীড়ে অভিমানে অবহেলে,
মরু আঁচলে লজ্জা রাঙা বধুটি সম।
মুখটি লুকাও স্মৃতির কলরোলে?
তপ্ত অশ্রুপাতে বিরহ বালু মুক্তোতে।
মরুদ্যানে মরুদ্বীপ জ্বালিয়ে,
আঁধার তৃষার জলসাঘরে।
স্মৃতির নিশি ফুরায় শিশিরের কাঁন্নায়।
তোমার যৌবন জল তৃষার লগ্ন বহিয়া যায়।

স্বপ্ন সমাধী তটে স্মৃতির কাননে বসিয়া।
বেদনার বালুচলে তোমার আঁখি জল।
বিরহের বিশুষ্ক দীঘল মরুঝড় বহিয়া যায়।
মিলনের প্রশান্ত নিশি প্রাতে ফুরায়।
তব কেন মুখটি লুকাও স্মৃতির কলরোলে?
মিলনের তিয়াসা তিমির ছেয়ে যায় গগনে।
কেন লুকাও তব তৃষিত প্রানের হিয়ার মাঝে?
তোমার জীবন তৃষার জলজোস্নার জোয়ার বাটে।

ফ্লোরেন্স সিটি ইটালী।
মঙ্গলবার সন্ধে।
৭ঃ৩০মিনিট
৫ এপ্রিল ২০২০ইং।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *