আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন

শামীম চৌধুরী, বিশেষ প্রতিনিধি, টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর দক্ষিণখানের হলান,রাইজিং সান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে,গণমাধ্যম ও মানবাধিকার সংস্থা এনপিএস- ন্যাশনাল প্রেস সোসাইটি,ঢাকা মহানগর উত্তর জোন কমিটির উদ্যোগে আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন করা হয়। এ সময় মহান একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের উপর আগত আমন্ত্রিত অতিথিগণ সংক্ষিপ্ত আকারে বাংলা ভাষার ইতিহাস তুলে ধরেন। বক্তারা সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন ১৯৫২ইং সালের একুশে ফেব্রুয়ারী ভাষা আন্দোলনে যদি জব্বার,সালাম, শফিউর,রফিক,বরকত সহ আরও অনেকে রাজপথে মায়ের ভাষা বাংলা ভাষা প্রতিষ্ঠার জন্য জীবন না দিতো তাহলে আজ আমাদেরকে পাকিস্তানের উর্ধু ভাষায় কথা বলতে হতো। কারণ তৎকালীন সময় পাকিস্তান সরকার ঘোষণা দিয়েছিলো বাংলাদেশের রাষ্ট্র ভাষা হবে উর্ধু। তখন এদেশের ছাত্র জনতা পাকিস্তানের এ ঘোষণা মানতে নারাজ। শুধু তাই নয়,১৯৫২ইং সালের ভাষা আন্দোলনে যখন এদেশের ছাত্র জনতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাজপথে মিছিল বের করে,আর বলে রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই,আমার ভাষা বাংলা ভাষা তখন পাকিস্তান সরকার ভাষা আন্দোলন বন্ধ করতে ১৪৪ ধারা জারি করে। কিন্তুু এদেশের ছাত্র জনতা তা মানতে নারাজ। যখন ১৪৪ ধারা ভেঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাজপথে মিছিল বের করে তখন মিছিলের উপর নির্মম ভাবে গুলি চালায় পাক বাহিনী। তখন ঘটনাস্হলে জব্বার,সালাম,শফিউর,রফিক, বরকত সহ নাম না জানা আরও অনেকে প্রাণ হারায়। এ ঘটনা যখন সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে তখন পাকিস্তান সরকার বাংলা ভাষাকে মর্যাদা দিয়ে রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে বাধ্য হয়। যাদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আজ আমাদের রাষ্ট্র ভাষা বাংলা ভাষা। যাদের কারণে আজ সারা বিশ্ব জুড়ে বাংলা ভাষার পরিচিতি। যেখানে এখন সারা বিশ্ব মহান একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করে। শুধু তাই নয়,জাতিসংঘ ও ইউনেসকো স্বীকৃত আমাদের রাষ্ট্র ভাষা বাংলা ভাষা। বর্তমানে বিশ্বের ৬ষ্ঠ স্হানে অবস্থান আমাদের মায়ের ভাষা বাংলা ভাষা। এবং জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে আমাদের বাংলা ভাষা। বর্তমান সরকার,মায়ের ভাষা বাংলা ভাষাকে গুরুত্ব দিয়ে সরকারি বেসরকারি সহ সকল অফিসে বাংলা ফরম্যাটে কাজ করতে ঘোষণা প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানের সভাপতি,মোঃ রিপন মিয়া,সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মকর্তা। প্রধান অতিথি,মাহবুবুল ইসলাম,চেয়ারম্যান-গণমাধ্যম ও মানবাধিকার সংস্থা (এনপিএস) বিশেষ অতিথি,শামীম চৌধুরী,সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মকর্তা। এস এম পান্না,সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মকর্তা। রফিকুল ইসলাম,মানবাধিকার কর্মকর্তা। এবং স্কুলের শিক্ষক মণ্ডলী,রাজনৈতিক সহ এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

etiler escort taksim escort beşiktaş escort escort beylikdüzü