অপহৃত কলেজ ছাত্রী নাসরিন সুলতানাকে উদ্ধার করেছে ময়মনসিংহ পিবিআই

বিশেষ প্রতিনিধি, টাইমস ২৪ ডটনেট, ময়মনসিংহ থেকে : মামলার ভিকটিম নান্দাইল থেকে অপহত কলেজ ছাত্রী নাসরিন সুলতানা (২১) কে শনিবার (৮ আগষ্ট) ত্রিশাল উপজেলা থেকে উদ্ধার করেছে ময়মনসিংহ পিবিআই। উদ্ধারকৃত শিক্ষার্থী কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল সরকারি কলেজে সত্মক ১ম বর্ষের ছাত্রী ছিল। সে নান্দাইল উপজেলার পুরহরি গ্রামের আব্দুল আওয়ালের কন্যা। ময়মনসিংহ পিবিআই এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান, ভিকটিম নাসরিন সুলতানা নান্দাইল শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজে পড়াকালীন সময়ে আসামী আল আমিন (২৩) প্রায়ই নাছরিনের সাথে ইভটিজিং করার কারনে ২০১৬ সালের ৭ নভেম্বর ভ্রাম্যমান আদালতের দেয়া ৪০ (চল্লিশ) দিন বিনাশ্রম কারাদন্ড ভোগ করে। এরপর খেকে আসামী আল আমিন ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা ভিকটিম ও তার পরিবারের ক্ষতি করার লক্ষে সুযোগ খুজতে থাকে। আসামীর পিতা পুলিশের কাছে ভিকটিমের পিতা অত্র মামলার বাদী আবদুল আউয়ালকে জেএমবি বলে মিথ্যে অভিযোগ দায়ের করে এবং সংবাদ সম্মেলন ও ফেসবুকসহ বিভিন্ন মিডিয়ায় মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে মানহানি করায় বাদী আবদুল আউয়াল আসামীদের বিরুদ্ধে মানহানী মামলা করে।
এক পর্যায়ে আসামীরা উক্ত আক্রোশের জের হিসেবে ২০১৮ সালের ১৯ ফেব্রæয়ারী
সকাল ৮ টার দিকে নাসরিন সুলতানা কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল বিশ^বিদ্যালয়ে যাবার পথে বাটুয়ারাপাড়ার উত্তর দিকে আচারগাঁও ফাজিল মাদরাসার দক্ষিণ পাশে ফাঁকা জায়গায় পৌছানো মারাত্মক অস্ত্রসহ মাইক্রোবাসযোগে অস্ত্রের মুখে জোরপূর্বক অপহরণ কওে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ মামলা তদন্ত শেষে ভিকটিমকে উদ্ধারসহ তার জবানবন্দি নাঃশিঃ ২২ ধারায় বিজ্ঞ আদালতে লিপিবদ্ধ না করে চূড়ান্ত রিপোর্ট তথ্যগত ভুল দাখিল করায় বাদী নারাজী দেন। বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে গত বছরের ১ এপ্রিল পিবিআই, ময়মনসিংহ মামলার তদন্ত পায়। এ মামলায় সকল আসামীরা জামিনে মুক্ত থাকায় কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। পিবিআই, ময়মনসিংহ জেলা মামলা তদন্তকালে দীর্ঘ দিন পর মামলার ভিকটিম নাসরিত সুলতানা (২১) কে ত্রিশাল থানা এলাকা থেকে উদ্ধার করে নাঃ শিঃ ২২ ধারায় ভিকটিমের জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করানোর জন্য বিজ্ঞ আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআই ময়মনসিংহ জেলার পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস বিপিএম জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *