ঢাকা থেকে নিখোঁজ সাংবাদিক কাজল বেনাপোল থেকে উদ্ধার

টাইমস ২৪ ডটনেট : ঢাকা থেকে নিখোঁজ ফটোসাংবাদিক ও দৈনিক পক্ষকালের সম্পাদক শফিকুল ইসলাম কাজলকে ২৩ দিন পর বেনাপোল সীমান্ত থেকে উদ্ধার করেছে বিজিবি। রোববার গভীর রাতে বেনাপোলের সাদিপুর সীমান্তবর্তী একটি মাঠ থেকে তাকে যশোর ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের রঘুনাথপুর বিজিবি ক্যাম্পের টহল দল উদ্ধার করে।
জানা গেছে, গত ১০ মার্চ রাজধানীর হাতিরপুল থেকে সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজল নিখোঁজ হন। ২৩ দিন পর রোববার রাতে তাকে উদ্ধার করা হলো। তিনি এখন বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের হেফাজতে আছেন বলে জানান ওসি মামুন খান। তিনি জানান, গত শনিবার দিবাগত রাত ৩টার পর ছেলে মনোরম পলকের সঙ্গে সাংবাদিক শফিকুলের প্রথম কথা হয়। বেনাপোল থানার একজন পুলিশের ফোন থেকে তিনি পলকের সঙ্গে কথা বলেন।
বেনাপোল রঘুনাথপুর বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডার হাবিলদার আশেক আলী বলেন, ফটোসাংবাদিক কাজলকে রাতে টহল দলের বিজিবি সদস্যরা সাদিপুর সীমান্তের একটি মাঠের মধ্য থেকে উদ্ধার করেন। বিজিবি পরে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের কাছে তাকে সোপর্দ করে। কাজলের পরিবারের সদস্যরা খবর পেয়ে রাতেই তাকে নিতে বেনাপোলের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়েন।
বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গত শনিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ফটোসাংবাদিক শফিকুল কাজলকে সীমান্ত দিয়ে অবৈধ পারাপারের অভিযোগে বিজিবি একটি মামলা দিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় হস্তান্তর করেছে। তাকে যশোর আদালতে পাঠানো হবে।
এদিকে সাংবাদিক কাজলের সন্ধান পাওয়ার বিষয়টি তার স্ত্রী জুলিয়া ফেরদৌসী নয়নও নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ফোনে কাজলের সঙ্গে কথা হয়েছে। বেনাপোল থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে। খবর পেয়ে রাতেই তারা বেনাপোলের উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে চলে গেছেন। বর্তমানে তিনি বেনাপোলেই আছেন।
অপর একটি সূত্র জানায়, গত ১০ মার্চ সন্ধ্যায় রাজধানীর হাতিরপুলের ‘পক্ষকাল’-এর অফিস থেকে বের হন সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজল। এর পর থেকে তার কোনো সন্ধান না পেয়ে পর দিন ১১ মার্চ চকবাজার থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন তার স্ত্রী জুলিয়া ফেরদৌসি নয়ন। ১৩ মার্চ জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে শফিকুল ইসলাম কাজলকে সুস্থ অবস্থায় ফেরত দেয়ার দাবি জানায় তার পরিবার। সাংবাদিক কাজল নিখোঁজ হওয়ার পর তার সন্ধানের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কয়েক দফা কর্মসূচি পালন করেছেন সাংবাদিক সহকর্মী ও পরিবারের সদস্যরা। তবে নিখোঁজের কয়েক দিন পর সাংবাদিক কাজলের ফোন নম্বরটি বেনাপোলেই চালু হয়েছিল।
তখন কাজল নিখোঁজের বিষয়টি নিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা চকবাজার থানার এসআই মুন্সী আবদুল লোকমান বলেছিলেন, নিখোঁজ সাংবাদিক কাজলের ফোন নম্বরটি চালু হয়েছিল। লোকেশন দেখিয়েছে বেনাপোল। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে ও নম্বরটি চালু থাকার সময় কম হওয়ায় বেনাপোলে কোনো অভিযান চালানো সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

etiler escort taksim escort beşiktaş escort escort beylikdüzü