সাহিত্য

কবিতার নটরাজ বিদ্যুৎ ভৌমিক এর একটি অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবিতা ও তাঁর সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য

সম্পাদকীয় কলম- “আত্মদর্শন” তাঁর কবিতার শেষ কথা । আজ্ঞে হ্যাঁ , কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক যাকে নিয়ে দেশ-বিদেশে এতো চর্চা , আলোচনা- সমালোচনা । একমাত্র কবিতাকেই উপজীব্য করে এই আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বর্তমানে তাঁর আকাশ ছোঁয়া নামডাক । প্রায় ৪০ বছরের কাছাকাছি , এই দীর্ঘ সময় ধরে বাংলা সাহিত্যকে সেবা করে আসছেন প্রিয় কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক ! তাঁর কাব্য প্রতিভার সুগন্ধ ছড়িয়ে পড়েছে অ্যামেরিকা , অস্ট্রেলিয়া , রোম , ইতালি-র মতো প্রগতিশীল দেশ গুলোতে ! ইদানীং এই মহান প্রতিভাকে নিয়ে কলম ধরছেন বিদগ্ধ কবিতাবিশ্লেষক পণ্ডিতজন ! কালজয়ী কবি ও সাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের কথায় ,— “আমি যতটুকু চিনি কবি~ বিদ্যুৎ ভৌমিক’কে , তিনি ভীষণ আত্ম মর্যাদা নিয়ে চলা একজন মানুষ ! আমাকে কখনো আনন্দ বাজার পত্রিকার প্রথম শ্রেণীর ম্যাগাজিন “দেশ” পত্রিকায় তাঁর কবিতা প্রকাশ করার জন্য অনুরোধ করেন নি ! তাঁর কথায় কোন থালায় খাচ্ছি , সেটা উপজীব্য নয় , কি খাচ্ছি সেটাই লক্ষণীয় ! তাঁর কবিতার এক একটা বাক্যই এক একটা কবিতা । আমি তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ “কথা না রাখার কথা” যখন পড়লাম ; অবাক হয়ে গিয়েছিলাম কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর কাব্যশক্তি অনুধাবন করে ! অনেক দূরে যাবেন এই কবি মানুষটি !’ যাই হোক , এই সংখ্যায় প্রকাশ করলাম আমাদের প্রিয় কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিকের একটি অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবিতা । এছাড়া থাকছে অ্যামেরিকা বোস্টন থেকে বিশিষ্ট লেখক ও সাংবাদিক ডঃ আদিত্য বসুর কলমে এই জীবিত কিংবদন্তী কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক এর সম্পূর্ণ পরিচিতি ! কবিকে আমাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা নিবেদন করলাম ]

****************************
কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক এর সম্পূর্ণ
কবি পরিচিতিঃ – লিখছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ডঃ আদিত্য বসু
***************************************
এই সময়ের দুই বাংলার জনপ্রিয় কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক ।
জন্ম ১৯৬৪ সন, ১৬ – ই জুন, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে
হুগলি জেলা তারই একটি ঐতিহাসিক শহর শ্রীরামপুরে ।
পিতা ঈঁশ্বর পীযূষ কান্তি ভৌমিক । মাতা শ্রীমতি ছায়ারানী
ভৌমিক । একমাত্র কবিতাকেই উপজীব্য করে ভারত ও
বাংলাদেশের পাঠকবন্ধুদের কাছে তিনি আদর ও সন্মান
পেয়ে চলেছেন । প্রায় ৩০ – ৩৫ বছর ধরে নিয়মিত ভাবে
প্রথম শ্রেণীর বেশির ভাগ পত্র পত্রিকায় লিখে চলেছেন –
কবিতা । কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক প্রসঙ্গ বলতে গিয়ে প্রখ্যাত
কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় বলেছেন, — এ সময়কার তরুণ
কবিদের মধ্যে কবি বিদ্যুৎ ভৌমিকের কবিতা পড়লে
মনের গঠনমূলক সৃজনশীল ভাবনা চোখের সামনে এসে
ধরা পরে ” *** আজ সমস্ত বিশ্বের বাঙালি পাঠকবন্ধুদের
আন্তরিক অনুরোধে কবি বিদ্যুৎ ভৌমিককে নিয়ে একটি
বিশেষ সংখ্যা নিবেদিত হোলো — //

**********************************
¤ কবি বিদ্যুৎ ভৌমিকের কাব্যগ্রন্থ ¤

১ /কথা না রাখার কথা ( আনন্দময়ী প্রকাশনী )
২ /গাছবৃষ্টি চোখের পাতা ভিজিয়ে ছিলো ( আনন্দময়ী )
৩ /নির্বাচিত কবিতা ( পত্রাবলী প্রকাশনী )
৪ / নীল কলম ও একান্নটা চুমু ( ই-বুক কাব্যগ্রন্থ – প্রকাশন
বাংলাদেশের > ছোটকবিতা. কম )
৫ / রেডিও করতোয়া বগুড়া থেকে প্রকাশিত হতে চলেছে
কবিকণ্ঠে কবিতা “— শীর্ষকএকক অডিও এ্যালবাম ।
৬ / আগামী ২০১৭ কলকাতা বইমেলায় প্রকাশিত হতে
চলেছে কবিতা সমগ্র” – ( পত্রাবলী প্রকাশনী )
***********************************
¤ কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক – এর পুরস্কার ও সম্মাননা ¤
*************************

২০০০ USA থেকে American Biographical Institute
তাঁকে MAN OF THE YEAR – এবং ওই একই সংস্থা —
থেকে ২০০৬ কবি বিদ্যুৎ – কে WORLD MEDAL OF
FREEDOM সন্মান ও পুরস্কার দেয় । বাংলাদেশের on
Line Mag ChhotoKabita. Com থেকে ২০১৬ শ্রেষ্ঠ
কবির সন্মান ও পুরস্কার । ২০১৩ – সন কবিকে কবিতার
শ্রেষ্ঠত্বের জন্য স্বাধীনতা সংগ্রামী ঈশ্বর শিশির গাঙ্গুলী
স্মৃতি পুরস্কার ও সম্বর্ধনা দেওয়া হয় । ২০১৫ সংবাদ এখন
সংবাদ পত্রিকা থেকে * বাংলা শ্রী * পুরস্কার ও সম্মাননা ।
RADIO KARATOA – বগুড়া থেকে বিশেষ সম্বর্ধনা ।
২০১৪ সমতা পরিষদের পক্ষ থেকে কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক-
কে সশ্রদ্ধ সংবর্ধনা দেওয়া হয় । ২০০৯ – পশ্চিমবঙ্গ বাংলা
আকাদেমি ( কলকাতা ) সদ্-ভাবনা “-পুরস্কার লাভ । এ –
ছাড়া তিনি ১৯৯৭ – দক্ষিণ কলকাতা ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক
পরিষদ থেকে সম্বর্ধনা লাভ করেন সেবা উৎসব উপলক্ষে ।
**************************************
¤ কবি বিদ্যুৎ ভৌমিকের কবিতার সংখ্যা ¤
*********************
প্রায় দশ হাজারের অধিক
*********************
কবিতা পাঠ ও পরিবেশনঃ
**********************
বিভিন্ন প্রোফেশন্যাল মঞ্চে কবিতা পাঠ ও আবৃত্তি ।
কলকাতা দূরদর্শন সহ বেশ কিছু বেসরকারি টিভি
চ্যানেলের আমন্ত্রণে নিয়মিত ভাবে কবিতা পাঠ এবং
কবিতানির্ভর সাক্ষাৎকার দিয়ে চলেছেন । এ ছাড়া –
RADIO JU90.8 MHZ FM – এর অনুষ্ঠান পরিচালনা ও
নিয়মিত ভাবে কবিতা পাঠ ও সাক্ষাৎকারে অংশ গ্রহণ ।
এবং on line RADIO KARATOA – র সাথে যুক্ত ।
***********************************
¤ হৃদয়তান্ত্রিক ধ্রুপদী কবিতা ¤

¤¤ ~জল ছোঁয়া রোগ এবং মৃত্যুঞ্জয়ী দর্পণ~ ¤¤

¤ ~বিদ্যুৎ ভৌমিক~ ¤
——————————————
ক ¤ ]

পাশের চেয়ারে ধ্যানব্রক্ষ্মে গভীর আরক্ত
কোথাও কী তপস্যা ভাঙার মন্ত্র হৃদয় ফুরিয়ে স্বপ্ন বদল করে
এই দু’হাত বুকের মধ্যে স্মৃতি ছুঁয়ে দেখে ; পাঁচ আঙুলের ছাপ লাগে স্বর্গের অলিন্দে ****
প্রতিদিনের অসুখ চরিত্র পতনের শব্দ শুনতে – শুনতে চেনা রাস্তা
দিয়ে ফিরে আসে ! এই তাপ যেমন গভীর ; ঠিক সেরকম অপ্রমেয়
উপমাহীন । তবুও কোথাও লুকিয়ে হারায় মন পোড়ানোর কৌশল
পাশের চেয়ারে অশরীর ক’রে রেখেছে আমায় —
এখানে স্মৃতি নষ্ট হতে – হতে দৃষ্টিও ভুলে যায় !
কেউ একজন অন্ধকার সিঁড়ির কাছে চিরঋণীর মতো চেহারায়
নিঃশব্দে দাঁড়িয়ে আছে ! অথচ ভালোবাসা মৃত্যু সইতে পারেনা ;
এক বেলাও !
খ ¤ ]
যদিও বৃষ্টির দিনে কিছু অসংলগ্ন ভুল
আমাকে সঙ্গে নিয়ে ভেসে গেছে মধ্যরাতে মায়া আকাশে
চিরজীবনের স্রোতে স্বভাবতই নদীর মত শব্দ ওঠে —
কথা ছিল, এখানে নবনীতার সঙ্গে চোখ বন্ধ করে ডুবে যাব,
ভেসে যাব সোহাগ নদীতে ! তবুও তো ভেতরের সব ঢেউ
দেবতার মত নিরাকার ****
এসবের মধ্যে বহুকালের ঋণ দয়া চায় ক্ষমতা চায়
ভ্রাম্যমাণ দুঃখের ভেতর —
পাশের চেয়ারে একাকীত্ব আঁধার পেতে বসে আছে
চিরকালীন স্বপ্নে সাক্ষী থাকা সহস্র ছায়ারা অঘমর্ষী
এভাবে সমস্ত দিক থেকে বহতা স্তব্ধতা মুকুটহীন রাজার মত
বসন্তে জ্বলে ওঠে !
এই চেয়ার থেকে অবিশ্বস্ত হুল্লোড় শুনতে শুনতে
বাকি পথ মন্দ ভাগ্য নিয়ে ভ্রাম্যমাণ !
গ ¤ ]

কোনো কিছুর জন্য ভুলতে পারি কী তোমায়
মনে – মনে ভেতর গর্ভের শরীর চিনি, — বুকের মধ্যে নীল জ্যোৎস্না কবিতার মতো প্রিয় প্রতিবেশী *** এই অন্তরীক্ষ যেখানে প্রতারক
স্মৃতিরা রাতের জন্য চোখ বুজে অপেক্ষায় থাকে অহর্নিশ একটানা ! এদের সবাই মানুষ সেজে থাকতে চায় ,
শেষ পর্যন্ত এদের কারণে আমার নিঃসঙ্গ গোটা রাত জাগা !
কোথাও ভাসমান ভাবনায় অতিরিক্ত অবিশ্বাস মেখে থাকে মায়াময় একশটা আহত শোক ****
এই চেয়ারে ঐশ্বরিক কেউ বোসে না থাকলেও ; কেউ একজন
মৃত্যুর মত স্থির হয়ে ঘুমিয়ে থাকে স্মৃতি বিছানায় —
কোন কিছুর জন্য ছাদের কার্নিস থেকে ছুঁড়ে ফেলে দেইনি তোমার অজস্র অক্ষর মালা ! অথচ এরকম অনন্ত অসুখ অবলা নিরীহ
ছিল সতেরো বছর !
ঘ ¤ ]

সমস্ত ব্যর্থতা অসহবাসের চেয়ে কঠিন ও কঠোর – ভীষণ ধারালো
তবুও স্তব্ধ দাঁড়িয়ে থাকতে দেখি আমার ছায়াকে সতেরো বছর !
সেও দুঃখে ও শোকে নির্ঘুম ঋণী হয়ে আছে ****
এই জানলা দিয়ে চাঁদ এসে বিছানায় সারাদিন ঘুরছে – ফিরছে
কাঙালের দীর্ঘশ্বাস তবু নিঝুম বিষণ্ণ, — সমস্ত স্বপ্নগুলো প্রবল
বৃষ্টিতে ধুয়ে যেতে – যেতে যাবতীয় ইচ্ছার ভেতর মরে পচে গেছে ।
শেষ একবার নিভৃতে চলে এলে অস্তিত্ব নিজের হৃদয়ে
একলক্ষ বার পদাঘাত করে !
শেষ একবার সহজ সত্যে প্রতিপ্রশ্ন ছুঁড়ে দেই মৃত্যুঞ্জয়ী দর্পণে ;
আমি কী মরে যাব ? আমি কী পাখি – ফুল – ফল, অনেক কিছু
হব ? কি জানি মন-তো ব’লছে না সেই কথা !
ঙ ¤ ]
সবটাই অমোঘ দোষ ; অধরোষ্টহীন কান্নায় ভাসে জল ছোঁয়া রোগে এক – একটা দুঃখ ; আমি ওদের ভালোভাবে চিনি, —
এই আধোজাগা সময়ে সেই চেয়ার এককালের স্পর্শে
অতল প্রেমহীন ! চোখের কাছে অচেনা কিছু চোখ ; আজব দর্শক
অন্ধকার রাতে মাথার কাছে ওরা কেউ কেউ শ্বাসকষ্টে কাঁপে —
এখানেও ক্ষমা চাওয়া চোখ বুজে অনুসরণ কবিতা পংক্তি ধরে
এখানেও মনের ভেতর জেগে ওঠে দীর্ঘকার ছায়া
অর্ধেক নিঃসঙ্গ এবং নিঃশব্দে নীরব ভিন্ন এলোমেলো !
তাকে নিয়ে ভাবা বিশ্ব – ভুবনময় , ওকি মৃত্যু ; নাকি অন্তরীক্ষে
স্মৃতি ছবি মেলে ধরে অনাদিকালের প্রোজেক্টারে !
এই চেয়ারে পৃথিবীর সব দুঃখ একাই পেতে – পেতে
সিংহাসন হয়ে আছে ;
অথচ আঙুলের কড় গুণে মৃত্যু দিন ভাগ হয়ে গেছে !
চ ¤ ]
ত্রিভাঁজ সময়, বুকের ভেতর কথাপাখি ; যেন নিভৃত প্রহরী
ঘরভর্তি মিশে যায় নম্রতার বিবর্ণ ধুলো
কেউ অবিশ্বস্ত, কেউ কেউ বিপরীতে বিরল প্রজাতির ছায়া
খুঁটে খায় ! ওই রাস্তায় চোখ বাঁধা কঙ্কাল হাঁটে বারমাস, —
ওদেরকে চিনি, ওরা রাতে আঁধারে জাদুঘরের আলো নিভিয়ে দেয়
রোজ । কী রকম গুণ টেনে উল্টে যায় দরাজ শিহরণ
তবুও যে রাস্তায় – রাস্তায় আকাশ ভাঙা মেঘ লীলাময় কান্নায়
রাতের জ্যোৎস্না ভেজায় —
এটাতো এই চশমায় স্বপ্ন জাগাতে চেয়ে ছদ্মবেশী গুপ্তচরকে বিছানা থেকে তুলে অলঙ্কৃত আদিখ্যেতার মলম লাগিয়ে দেয়
অতলান্ত ক্ষতে ! এই চেয়ারে বহু শতকের মায়াময় কৌতুক একজন কবির রহস্যময় শোকে প্রেত ও ঈশ্বরের স্পর্শে জন্মঋণের ফর্দ নিয়ে জেগে থাকে !!

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

Close
mersin escort mut escort mersin escort canlı tv izle konya escort
sakarya escort sakarya escort sakarya escort sakarya escort sakarya escort
sakarya escort sakarya escort ümraniye escort serdivan escort
ankara escort ankara escort bayan escort ankara
Balıkesir escort Manisa escort Aydın escort Muğla escort Maraş escort Yozgat escort Tekirdağ escort Isparta escort Afyon escort Giresun escort Çanakkale escort Trabzon escort Çorum escort Erzurum escort Zonguldak escort Sivas escort Düzce escort Tokat escort Osmaniye escort Didim escort Kütahya escort Mardin escort Van escort Yalova escort Şanlıurfa escort Ordu escort Alanya escort Fethiye escort Sakarya escort Konya escort Elazığ escort Kayseri escort Hatay escort Diyarbakır escort Kocaeli escort Gaziantep escort Adana escort Van mutlu son Maraş mutlu son Şanlıurfa mutlu son Isparta mutlu son Amasya mutlu son Afyon mutlu son Denizli mutlu son Kayseri mutlu son Eskişehir mutlu son Tekirdağ mutlu son Adana mutlu son Çanakkale mutlu son Kayseri mutlu son Denizli mutlu son Tokat mutlu son Yalova mutlu son Sivas mutlu son Kırklareli mutlu son Osmaniye mutlu son Mardin mutlu son Zonguldak mutlu son