আজও ফোনটা ভাইব্রেট দেখে হৃদস্পন্দন কয়েকগুণ বেড়ে যায়

শিল্পি আক্তার: ফোনটা ভাইব্রেট করেই চলছে। স্ক্রিনের দিকে স্থির দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি । হাত কাঁপছে । এত দিন, এতবছর পর আবার সেই নাম্বার থেকে ফোন এসেছে বিশ্বাস হচ্ছে না । আজও নাম্বারটা দেখে হৃদস্পন্দন কয়েকগুণ বেড়ে যায় । মনের মাঝে প্রবল ঝড় বয়ে যায় । শেষপর্যন্ত রিসিভ করে ফেল্লাম । ওপাশ থেকে ভেসে এল সেই পরিচিত কন্ঠস্বর । এতবছর পরও একটুও বদলায়নি। সেই আগের মতই আছে …. :হ্যালো ……… … কি হল? কিছু বলছ না যে? :না আসলে পাঁচ বছর পর এই নাম্বার থেকে ফোন আশা করিনি । তাই বুঝতে পারছিনা যে কি বলব । :কয়েকদিন থেকেই তোমার কথা খুব মনে পড়ছিল । কিন্তু ফোন করার ঠিক সাহস পাচ্ছিলাম না । কাল থেকে তোমার কন্ঠ শোনার খুব ইচ্ছে করছিল । তাই আজ সাহস করে ফোনটা দিয়েই দিলাম । কেমন আছ তুমি ? :মানুষ বদলে যায় কিন্তু তাদের কন্ঠ বদলায়না । হুম আছি নিজের মত করে । নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত আছি । :জিঞ্জেস করবেনা আমি কেমন আছি ? :উহু,প্রয়োজন নেই । কিছু কিছু মানুষ আছে যারা সবসময় ভাল থাকে । তুমি হচ্ছ তাদের একজন । :(ওপাশে কিছুক্ষণ নীরবতা…….) আমার কথা মনে পড়েনি তোমার ? :হ্যা পড়েছে । অনেক মনে পড়েছে । যথন দিনের পর দিন না খেয়ে থাকতাম তখন মনে পড়ত “তুমি ঠিকমত খাচ্ছ তো?” যখন রাতের পর রাত না ঘুমিয়ে,কেঁদে কেঁদে অসুস্থ হয়ে পড়তাম তখন মনে পড়ত “তুমি সুস্থ আছ তো?” যখন কোন আনন্দোত্সবে সবাই হইচই আর আনন্দে মেতে উঠত আর আমি ঘরের দরজা বন্ধ করে অন্ধকারে বসে থাকতাম তখন মনে পড়ত “তুমি সবারসাথে খুশি আর আনন্দে মেতে উঠছ তো?” যখন আয়নায় নিজের অযত্ন অবহেলায় শুকিয়ে যাওয়া চেহারাটার দিকে তাকাতাম তখন মনে পড়ত “তুমি নিশ্চই আরো সুন্দর হয়ে গেছ ।” একসময় অনেক মনে পড়েছে । এখন আর পড়ে না । এখন এত সময় কই এগুলো মনে পড়ার? :(ওপাশে আবার নিরবতা ……) আমাকে কি ক্ষমা করা যায় না? :ক্ষমা তো আমি তোমাকে পাঁচ বছর আগেই করে দিয়েছিলাম । তোমায় ক্ষমা না করলে আমার মনে তোমার দেয়া কষ্টগুলোর ক্ষত কোনভাবেই শুকাত না । আচ্ছা এখন তাহলে রাখি । এখন আমার আকাশ দেখার সময় । প্রতিদিন রাতে এইসময় আমিআকাশ দেখি । আকাশের সাথে কথা বলি । আকাশ কখনো আমার সাথে ছলনা করেনা । প্রতিরাতে সে তারার ঝুলি নিয়ে আমার সামনে হাজির হয় । আমি কথা বলি সে চুপচাপ শোনে । একটুও বিরক্ত হয়না । :……একরাত আকাশের সাথে কথা না বল্লে হয় না?আমাদের কথা থেকে আকাশের কথা কি খুব বেশি জরুরী? :আপাতত তাই । আমার চরম অসহায়ত্ব আর একাকিত্বের সময় এই আকাশ আমায় সঙ্গ দিয়েছে । যে পাঁচ বছর আমায় দূরে সরিয়ে রেখেছিল তার জন্য আমি আমার পাঁচ বছরের পাশে থাকা সঙ্গীকে দূরে সরিয়েরাখতে পারবনা । আচ্ছা আমি এখন যাব । রাতের আকাশ আমার জন্য অপেক্ষা করছে । আজ খুব সুন্দর একটা চাঁদও উঠেছে আকাশে । আজ চাঁদের সাথেও কথা বলব …… ফোনটা কেটে দিলাম । বারান্দায় এসে দাড়ালাম । আকাশের বুকে গোল একটা চাঁদ উঠেছে । তাকিয়ে আছি । খুব কষ্ট হচ্ছে । সেই পাঁচবছর আগের মত কষ্ট যখন তুমি আমাকে ছেড়ে চলে গিয়েছিলে । কি দোষ ছিল আমার?কেন চলে গিয়েছিলে?আজ ও তা আমি জানিনা । তারপরও অটুট বিশ্বাস,আশা ধরে রেখেছিলাম একদিন তুমি আসবে । আমি অপেক্ষা করব । করেছি,অনেক অপেক্ষা করেছি। ভেবেছিলাম যেদিন তোমার ফোন আসবে খুশিতে চিত্কার দেব । তোমার পানে ছুটে চলে যাব । দিন যায়,মাস যায়,বছর যায় কিন্তু তুমি আসনা। আমার কোনো খবর ও নেও না।আর এখন তো তুমার কথা ভাবার আর চমার সময়ই হয় না।

লেখক: শিল্পি আক্তার, সিনিয়র সাংবাদিক, ঢাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

etiler escort taksim escort beşiktaş escort escort beylikdüzü